গাউন বোরকা ডিজাইন - সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন

 এই পোস্টে আমরা আলোচনা করব গাউন বোরকা ডিজাইন - সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন নিয়ে। প্রত্যেক মুসলিম নারীদের ওপর পর্দা করা ফরজ। আর নারীদের পুরো শরীর ঢাকার জন্য আল্লাহ তায়ালা পর্দার বিধান দিয়েছেন। এখন বিভিন্ন রকম বোরকা পাওয়া যায় তাদের মধ্যে গাউন বোরকা ডিজাইন অন্যতম। 

তো চলুন দেখে আসা যাক গাউন বোরকা ডিজাইন - সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন সব ডিজাইন গুলো।

পেজ সূচিপত্রঃ গাউন বোরকা ডিজাইন - সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন - গাউন বোরকা ডিজাইন কাটিং

বোরকা কেন পড়া হয়?

ইসলামের দৃষ্টিতে প্রত্যেক মুসলিম নারীদের ওপর পর্দা করা ফরজ। মূলত নারীদের সৌন্দর্য অন্যদের কাছে প্রদর্শন না করার জন্য পর্দার বিধান দেওয়া হয়েছে। নারী শুধু তার স্বামীর কাছে তার সৌন্দর্য প্রকাশ করতে পারবে। আর এটাই হল আল্লাহ তাআলার আইন। এক কথায় বলতে গেলে নারীদের পুরো শরীর পরপুরুষের বদ নজর থেকে রক্ষা করার জন্য পর্দা করা হয়।

আরো পড়ুনঃ ছোট মেয়ে বাচ্চাদের জামার ডিজাইন

পর্দার একটি অংশ হলো বোরকা। পর্দা করার জন্য বোরকা পরা হয়। বোরকা পরা কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। আপনি বোরকা পরেন বাজে কোন পোশাক পরুন এর চারটি নিয়ম রয়েছে। যেগুলো আপনি মেনে চললে আপনার পর্দা করা হয়ে যাবে। সে নিয়ম গুলো নিচে আলোচনা করা হবে। আমরা এখন দেখব গাউন বোরকা ডিজাইন - সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন।

গাউন বোরকা ডিজাইন কি?

এখনকার যুগে মেয়েরা সাধারণত স্টাইল করার জন্য বোরকা পড়ে থাকে। তাই এই যুগে অনেক রকম বোরকা ডিজাইন পাওয়া যায়। এই ডিজাইনগুলো মধ্যে অন্যতম হলো গাউন বোরকা ডিজাইন। গাউন বোরকা ডিজাইন খুবই সুন্দর এবং পড়তে খুব আরামদায়ক। তাই মেয়েরা সাধারণত গাউন বোরকা ডিজাইন বেশি পছন্দ করে থাকে।

গাউন বোরকা ডিজাইন - সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন

আপনারা যারা গাউন বোরকা ডিজাইন ও সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন খুঁজছেন আপনাদের জন্য নিচে সুন্দর সুন্দর কিছু গাউন বোরকা ডিজাইন ও সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন দেওয়া হল। আপনাদের ভালো লাগাই আমাদের সার্থকতা।

আরো পড়ুনঃ হিজাব পরা পিক

আরো পড়ুনঃ পাকিস্তানি মেয়ে শিশুদের নাম

সেহেজাদি গাউন বোরকা ডিজাইন

অনেক মেয়েরা আছে একটু বেশি ডিজাইন করা বোরকা পরতে পছন্দ করেন। আপনাদের জন্য নিচে সেহেজাদি গাউন বোরকা ডিজাইন গুলো তুলে ধরা হলো।

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের স্মার্ট ইসলামিক নাম

ইসলামের দৃষ্টিতে মেয়েদের পর্দার বিধান - গাউন বোরকা ডিজাইন

ইসলামী নিয়ম অনুযায়ী মেয়েরা ৪ নিয়মে পোশাক পরতে পারবেন। সেই নিয়ম গুলো নিচে দেওয়া হল। ইসলামী নিয়ম অনুযায়ী মেয়েদের পর্দার বিধান ও কেমন করে পোশাক পরতে হবে তা শিখিয়েছেন। তা হলঃ
  • পুরো দেহ ঢাকা থাকতে হবে। যে পোশাক পরবেন সেটা যেন আপনার পুরো শরীরকে ঢেকে রাখতে পারেন। শুধু হাতের কব্জি পর্যন্ত খোলা রাখতে পারবেন। শর্তসাপেক্ষে এবং প্রয়োজনে মুখ খুলতে পারেন। একজন মহিলা বোরকা পড়েছে তার পুরো শরীর ঢাকা কিন্তু মুখ মন্ডল খোলা তাহলে তার পর্দা  হয়নি তা বলা যাবে না। কিন্তু উত্তম হচ্ছে চেহারা ঢেকে রাখা। কারণ চেহারা হলো সৌন্দর্যের রাজধানী। চেহারা দেখলেই বোঝা যায় সুন্দর না অসুন্দর। পা ও ঢেকে রাখতে হবে। পা কিন্তু পর্দার অন্তর্ভুক্ত।
  • পোশাক ঢিলেঢালা হতে হবে। কিন্তু এই যুগের মেয়েরা অনেক টাইট ফিটিং জামা পড়ে থাকে। যেগুলো দেখে পুরুষরা আকর্ষিত হয়। তাই ইসলাম অনুযায়ী মেয়েদের ঢিলেঢালা জামা পরতে হবে। এবং পোশাক মোটা কাপড়ের হতে হবে। জানি বাহির থেকে ভেতরে কিছু দেখা না যায়।
  • যে পোশাক পরুন সেই পোশাকটি শালীন পোষাক হতে হবে। মহিলারা অনেক রকম পোশাক পড়ে থাকে। সবাইতো আর সব রকম কাপড় পরতে পছন্দ করেনা। তাই আপনি যে পোশাক পরুন না কেন পোশাকটি জানো সালে হয়।
  • পুরুষদের পোষাক মহিলারা করতে পারবেন না। কারণ বিশ্বনবী(হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) লানদ করেছেন ওইসব মহিলাকে যারা পুরুষদের পোশাক পরে।

শেষ কথাঃ গাউন বোরকা ডিজাইন - সেলাই গাউন বোরকা ডিজাইন - গাউন বোরকা ডিজাইন কাটিং

আপনারা যারা গাউন বোরকা ডিজাইন খুঁজছেন তাদের জন্য উপরে ভালো ভালো কিছু গাউন বোরকা ডিজাইন দেওয়া হয়েছে। যেহেতু ইসলামের দৃষ্টিতে বোরকা পড়া ফরজ বা পর্দা করা ফরজ সেহেতু প্রত্যেকটি নারীকে পর্দা করতে হবে ইসলামী তরিকায়। আর বোরকা পর্দার একটি অংশ।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য ধন্যবাদ। এরকম আরো পোস্ট করতে আমাদের ফেসবুক পেজ ও ওয়েবসাইট ফলো করুন।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url