বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ [১টি] - (২০২৩ আপডেট)

বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ, বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ রচনা, (বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ Class 1, 2, 3, 4, 5, 6, 7, 8, 9, 10) (বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ ১ম, ২য়, ৩য়, ৪র্থ, ৫ম, ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৮ম, ৯ম, ১০ম শ্রেণি) বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ নিচে দেওয়া হয়েছে। 100 - 150 শব্দ, লিখন, 2023, ক্লাস ১০, jsc, ssc, hsc)

বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ [১টি] - (২০২৩ আপডেট)

"বুদ্ধিজীবী হত্যা অনুচ্ছেদ"

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস বাংলাদেশে পালিত একটি বিশেষ দিবস। প্রতিবছর বাংলাদেশে ১৪ ডিসেম্বর দিনটিকে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে পালন করা হয়। একটি দেশের সম্পদ হলো বুদ্ধিজীবীগণ, তাঁদের হত্যা করলে দেশটির অপূরনীয় ক্ষতি করা সম্ভব। আর তাই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ১৯৭১ সালে ২৫ শে মার্চ রাতে এবং মুক্তিযুদ্ধের শেষ পর্যায়ে ১৪ ডিসেম্বর আমাদের সকল যশস্বী ও মনস্বী বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে যান। নির্বিচারে হত্যা করে তাদের। সে দিন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বিভিন্ন আবাসস্থল থেকে ধরে নিয়ে যায়, অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, আনোয়ার পাশা, রাশীদুল হাসান, সন্তোষচন্দ্র ভট্টাচার্য, প্রখ্যাত চিকিৎসক ফজলে রাব্বী আব্দুল আলীম, সাংবাদিক শহীদুল্লা কায়সার, নিজাম উদ্দীন আহমদ, আ.ন.ম গোলাম মোস্তফাসহ আরো অনেক বুদ্ধিজীবীকে। এদের কেউই আর ফিরে আসেনি। স্বাধীনতা লাভের পরবর্তী সময়ে এ সকল বুদ্ধিজীবীদের ক্ষত-বিক্ষত লাশ পাওয়া যায় মিরপুর ও রায়ের বাজার বধ্যভুমিতে। আবার অনেকের সন্ধানও পাওয়া যায় নি। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আমাদের দেশকে নিশিহ্ন করতে ব্যর্থ হয়ে দেশের জ্ঞানী গুণী এই বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে। এই বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে প্রতিবছর ১৪ই ডিসেম্বর আমরা পালন করি ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস’।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url