ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ [১টি] - (২০২৩ আপডেট)

ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ, ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ রচনা, (ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ Class 1, 2, 3, 4, 5, 6, 7, 8, 9, 10) (ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ ১ম, ২য়, ৩য়, ৪র্থ, ৫ম, ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৮ম, ৯ম, ১০ম শ্রেণি) (ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ নিচে দেওয়া হয়েছে। 100 - 150 শব্দ, লিখন, 2023, ক্লাস ১০, jsc, ssc, hsc)

ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ [১টি] - (২০২৩ আপডেট)

"ডেঙ্গুজ্বর অনুচ্ছেদ "

সাম্প্রতিক সময়ে যে রােগটি জাতীয় জীবনে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে সেটি হলাে ডেঙ্গুজ্বর। ডেঙ্গু নামক ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে ক্লাসিক্যাল বা হােমােরেজিক ধরনের তীব্র জ্বরকেই ডেঙ্গুজ্বর বলে। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ডেঙ্গু এক মহামারী রূপ ধারণ করেছে। ১৯৯৬ সালে গোটা বিশ্বে প্রায় দুই কোটি মানুষ ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছিল। ডেঙ্গু এডিস মশা বাহিত এক ধরনের তীব্র জ্বর। ক্লাসিক্যাল এবং হেমোরেজিক ডেঙ্গুজ্বরের সুনির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা নেই। উপসর্গের ওপর নির্ভর করে এর চিকিৎসা করতে হয়। এডিস এজিপটাই বা এডিস এলকোপিপটাস স্ত্রীজাতীয় মশা কোনো ব্যক্তিকে কামড়ালে সেই ব্যক্তি চার থেকে ছয় দিনের মধ্যে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়। এতে দেহের তাপমাত্রা ১০৪ থেকে ১০৫ ডিগ্রিতে উঠে যায়। মাংসপেশি ও হাড়ে প্রচণ্ড ব্যথা হয়। বমি বমি ভাব থাকে। ৩/৪ দিন পর দেহে এক ধরনের ফুসকুড়ি ওঠে। মাংসপেশির খিঁচুনিতে রোগী অজ্ঞান হয়ে যায়। ডেঙ্গু হেমোরেজিক হলে রক্তনালি ও চামড়ার নিচে রক্ত জমাট বেঁধে যায়। কখনো কখনো দাঁত বা দেহের অন্য স্থান দিয়ে রক্তক্ষরণ হয়। এই জ্বরে আক্রান্ত হলে রোগীকে পুরোপুরি বিশ্রামে থাকতে হয়। মারাত্মক উপসর্গ দেখা দিলে রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। জ্বর কমানোর জন্য প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ খাওয়াতে হয় চিকিৎসকের পরামর্শমতো। রোগীকে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে বিভিন্ন প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষার ফল অনুযায়ী চিকিৎসা করতে হয়। তরল খাবার ও পানীয় এ রোগীর জন্য খুব জরুরি। প্রয়োজনে আইডি স্যালাইন বা রক্ত সঞ্চালনের ব্যবস্থা করতে হবে এবং দিন-রাত সবসময় মশারি ব্যবহার করতে হয়। ডেঙ্গু আগেও ছিল, এখনও আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। তাই ডেঙ্গুজ্বরকে ভয় না পেয়ে এর সঙ্গে যুদ্ধ করেই এবং একই সঙ্গে প্রতিরোধ করেই আমাদেরকে চলতে হবে।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url