পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ [১টি] - (২০২৩ আপডেট)

পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ, পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ রচনা, (পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ Class 1, 2, 3, 4, 5, 6, 7, 8, 9, 10) (পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ ১ম, ২য়, ৩য়, ৪র্থ, ৫ম, ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৮ম, ৯ম, ১০ম শ্রেণি) (পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ নিচে দেওয়া হয়েছে। 100 - 150 শব্দ, লিখন, 2023, ক্লাস ১০, jsc, ssc, hsc)

পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ [১টি] - (২০২৩ আপডেট)

"পাঠের আনন্দ অনুচ্ছেদ"

মানুষের আনন্দ লাভের বিচিত্র পথ রয়েছে। তার মধ্যে গ্রন্থ পাঠ আনন্দ লাভের শ্রেষ্ঠ পথ হিসেবে বিবেচিত। পাঠের আনন্দ মানুষকে নিয়ে যায় জ্ঞানের রাজ্যে, বিচরণ করায় বিশ্বসাহিত্যের পাতায় পাতায়। মানুষের মনতুষ্টির জন্য প্রয়োজন বই পাঠ করা। মনের দাবি মেটানোর অবিকল্প মাধ্যম একমাত্র বই পাঠ। এ দাবি রক্ষা না করলে মানুষের আত্মা বাঁচে না। আর মানুষের আত্মা সজীব না রাখতে পারলে জাতির প্রাণ যথার্থ স্ফূর্তি লাভ করে না। ফলে সে জাতি হয়ে ওঠে নির্জীব, নিষ্প্রাণ। আমাদের উচিত বাধ্যগত হয়ে বই পাঠ না করে আনন্দের উপাদান হিসেবে বই পাঠ করা। কারণ বই পাঠে জ্ঞানের গহিন রাজ্যে বিচরণ করা যায়। অর্জন করা যায় বিজ্ঞান, দর্শন, অর্থনীতি, ধর্মনীতি, সমাজনীতি প্রভৃতি সম্বন্ধে অগাধ পাণ্ডিত্য। খুলে যায় মনের ভুবন ও স্বপ্নের আকাশ। যত জ্ঞানী-গুণী তাঁদের পদচারণায় পৃথিবীকে ধন্য করেছেন তাঁরা সকলেই ছিলেন বই পাঠে নিমগ্ন। বই পাঠের আনন্দে তাঁরা ছিলেন বিভোর। তাইতো তাঁদের অবস্থান জ্ঞান ও গরিমায় চূড়ায়, মনুষ্যত্ব ও মানবিকতার স্বর্ণশিখরে। তাই ধর্মান্ধতা, গোঁড়ামিসহ সকল প্রকার কুসংস্কার দূর করে শুভবুদ্ধির জাগরণ ঘটাতে সকলেরই বেশি বেশি বই পড়া উচিত।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url