ই-ব্যাংকিং কাকে বলে | ই ব্যাংকিং এর কাজ

আসসালামু আলাইকুম, প্রিয় পাঠক পাঠিকা বৃন্দ আশা করি আপনারা প্রত্যেকেই ভালো আছেন ও সুস্থ আছেন। ই ব্যাংকিং কি অথবা ই ব্যাংকিং কাকে বলে আজ আমরা এই পোস্টের মাধ্যমে আপনাদের বিস্তারিত ভাবে জানিয়ে দেবে।

ই ব্যাংকিং কাকে বলে | ই ব্যাংকিং এর কাজ
আপনারা যদি ই-ব্যাংকিং  সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান এবং ধারণা নিতে চান তাহলে এই পোস্টটি শেষ পর্যন্ত  পড়ুন। এর মাধ্যমে আপনি প্রকৃতপক্ষে আপনার অনুসন্ধানের উপযুক্ত সমাধান খুঁজে পেতে চাইবেন।

ই-ব্যাঙ্কিং হল একটি বিস্তৃত শব্দ যাতে ইন্টারনেট এবং মোবাইল ব্যাঙ্কিং থেকে শুরু করে যার মধ্যে NEFT এবং IMPS ট্রান্সফার সবকিছুই অন্তর্ভুক্ত।

ই-ব্যাংকিং আসলে কি?

ই-ব্যাংকিং হল এমন একটি ব্যবস্থা যা একটি ব্যাঙ্ক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং এর গ্রাহকদের মধ্যে ইন্টারনেটের মাধ্যমে এনক্রিপ্ট করা লেনদেন সক্ষম করে। ইলেকট্রনিক ব্যাঙ্কিংয়ের জন্য সংক্ষেপে, বিভিন্ন ধরনের ই-ব্যাঙ্কিং রয়েছে যা বিভিন্ন গ্রাহকের চাহিদা পূরণ করে যা অনলাইনে সমাধান করা যেতে পারে।

ই-ব্যাংকিং অ-আর্থিক বা অ-আর্থিক লেনদেনের জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে যেমন আপনার এটিএম পিন পরিবর্তন করা, একটি মিনি স্টেটমেন্ট প্রাপ্ত করা, আপনার ব্যক্তিগত তথ্য আপডেট করা, ব্যালেন্স অনুসন্ধানের অনুরোধ করা, বা একটি অ্যাকাউন্ট স্টেটমেন্ট প্রিন্ট করা। সহজ কথায়, এটি এমন কোনো লেনদেন যা আপনার অ্যাকাউন্ট বা তহবিল জড়িত নয়।

ই-ব্যাংকিং  কত প্রকার 

  • এবং ডেবিট 
  • ক্রেডিট কার্ড
  • মোবাইল ব্যাঙ্কিং
  • অনলাইন ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং
  • অটোমেটেড টেলার মেশিন (এটিএম)

উপরের এ বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনারা সবাই শুনেছেন বা জেনেছেন। মূলত এগুলোকেই ই-ব্যাংকিং এর আওতায় ধরা হয়। চলুন জেনে নেওয়া যাক ই-ব্যাংকিং সতর্কমূলক কিছু বার্তা এবং গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য।

অনলাইন ব্যাংকিং গুরুত্বপূর্ণ

এটি শেষ পর্যন্ত অনলাইন ভুল উপস্থাপনা এবং রেকর্ড হ্যাকিং থেকে সুরক্ষা দেয়। আপনার বিলের কিস্তি কাটার সময় এবং আপনি জরিমানা করার খুব কাছাকাছি চলে এসেছেন তা নির্বিশেষে, আপনি ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিংয়ের উপর নির্ভর করতে পারেন। দিনের যে কোন সময় আপনার বাড়ির সান্ত্বনা থেকে অনলাইন বিনিময় করা যেতে পারে।

ই-ব্যাংকিং নিরাপদ

যখন আপনার ব্যাঙ্ক কঠোর নিরাপত্তা প্রোটোকল মেনে চলে এবং আপনি সম্ভাব্য নিরাপত্তা হুমকির বিষয়ে সচেতন হন, তখন অনলাইন ব্যাঙ্কিং হল আপনার অর্থ পরিচালনা করার একটি নিরাপদ উপায়। গ্রাহকের তথ্য সুরক্ষিত রাখতে ব্যাঙ্কগুলি বিভিন্ন ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ব্যবহার করে।

ই-ব্যাংকিং কে আবিস্কার করেন?

1994 সালের অক্টোবরে স্ট্যানফোর্ড ফেডারেল ক্রেডিট ইউনিয়ন সর্বপ্রথম ইন্টারনেট ব্যাংকিং অফার করে। ব্যবসার জন্য ই-ব্যাংকিং ব্যবসা এবং স্টেকহোল্ডার উভয়ের জন্যই সুবিধাজনক। তারা তাদের প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে 24-ঘন্টা পরিষেবা ব্যবহার করতে পারে। উপরন্তু, এটি বড় এবং ছোট উভয় ব্যবসার জন্য সাশ্রয়ী মূল্যের।

ই-ব্যাংকিং ব্যবস্থার সুবিধা

ই-ব্যাংকিং ব্যবস্থার সুবিধা নিচে দেওয়া হলঃ- 

  • রিচার্জিং
  • বিল পরিশোধ
  • বুকিং আমানত
  • তহবিল স্থানান্তর
  • অ্যাকাউন্ট ট্র্যাকিং
  • ব্যালেন্স চেক করা
  • অ্যাড-অন পরিষেবা
  • ব্যাঙ্ক পণ্যের জন্য অর্ডার স্থাপন
  • ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিংয়ের মাধ্যমে আপনি এক অ্যাকাউন্ট থেকে অন্য অ্যাকাউন্টে অর্থ স্থানান্তর করতে পারেন।

ই-ব্যাংকিং ব্যবহৃত হয়

ই-ব্যাংকিং হল ব্যাঙ্কগুলির দ্বারা প্রদত্ত একটি পরিষেবা, যেখানে একজন গ্রাহককে ইন্টারনেট ব্যবহার করে লেনদেনের অনুমতি দেওয়া হয়। এটি একটি ইলেকট্রনিক পেমেন্ট সিস্টেম যা যেকোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠানের (ব্যাংক, বীমা কোম্পানি, ব্রোকারেজ ফার্ম, ইত্যাদি) ব্যবহারকারীদের (গ্রাহক) ইন্টারনেট ব্যবহার করে আর্থিক লেনদেন করতে দেয়।

ই-ব্যাংকিং

ই-ব্যাংকিং হল একটি অনলাইন ব্যাঙ্কিং পণ্য যা আপনাকে সহজেই এবং নিরাপদে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করতে দেয়। ই-ব্যাঙ্কিং হল একটি নিরাপদ, দ্রুত, সহজ এবং দক্ষ ইলেকট্রনিক পরিষেবা যা আপনাকে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টগুলি অ্যাক্সেস করতে এবং দিনে 24 ঘন্টা, সপ্তাহের সাত দিন অনলাইন ব্যাঙ্কিং লেনদেন পরিচালনা করতে দেয়।

ই ব্যাংকিং কাকে বলে | ই ব্যাংকিং এর কাজ

ই-ব্যাঙ্কিং পছন্দ করবেন কেন

ই-ব্যাংকিং নিরাপদ, স্বচ্ছ এবং দ্রুত ডিজিটাল পেমেন্ট সক্ষম করে। আপনি ই-ব্যাঙ্কিংয়ের মাধ্যমে যখনই চান আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করতে পারেন। ই-ব্যাংকিং লেনদেনে কম লেনদেনের খরচের সুবিধা যোগ করুন। তাত্ক্ষণিক বিজ্ঞপ্তিগুলিও সুবিধাজনক কারণ তারা আপনাকে রিয়েল টাইমে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে অবহিত রাখে৷।

ATM

এটিএম/ATM ছিল প্রথম ই-ব্যাঙ্কিং পরিষেবা যার মাধ্যমে ব্যাঙ্কগুলি ডিজিটাল হতে শুরু করেছিল। একটি ATM টাকা তোলা এবং জমা করার প্রক্রিয়াকে সুবিধাজনক করে তোলে।

ইলেকট্রনিক ডাটা এন্টারচেঞ্জ

ইডিআই এমন একটি প্রযুক্তি যা ব্যবসায়িক লেনদেনের মধ্যে সীমাবদ্ধ। এটি প্রস্তুতকারক, সরবরাহকারী, লজিস্টিক প্রদানকারী, খুচরা বিক্রেতা এবং পাইকারী বিক্রেতাদের সমন্বয়ে গঠিত একটি সাপ্লাই চেইন জুড়ে লেনদেনের খরচ কমাতে ব্যবহার করা হয়।

ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ড

ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ডগুলিও ই-ব্যাঙ্কিংয়ের একটি রূপ! ডেবিট কার্ড আমাদের সহজেই এটিএম এবং POS (পয়েন্ট অফ স্কেল) মেশিন থেকে নগদ তুলতে সাহায্য করতে পারে। অন্যদিকে, ক্রেডিট কার্ড গ্রাহকদের একটি প্রাক-অনুমোদিত সীমা পর্যন্ত তহবিল ধার করার অনুমতি দেয় এবং তাদের বিভিন্ন অফার পেতে সহায়তা করে।

মোবাইল - ইন্টারনেট ব্যাংকিং

ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং এবং ই-ব্যাঙ্কিং প্রায় সমার্থক, পরেরটি একটি বিস্তৃত পরিভাষা যা পূর্ববর্তীটি অন্তর্ভুক্ত করে। ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং একটি ওয়েব পেজ (সাধারণত একটি ব্যাঙ্কের ওয়েবসাইট) বা একটি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে সম্পন্ন করা কোনো আর্থিক বা অ-আর্থিক লেনদেনকে বোঝায়।

অন্যদিকে, মোবাইল ব্যাঙ্কিং আপনার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে একটি ব্যাঙ্কের মোবাইল ব্যাঙ্কিং অ্যাপের মাধ্যমে হয়৷

শেষ কথা

আশা করি এই কনটেন্টটি আপনাদের পছন্দ হয়েছে। আপনার পছন্দের আরো পোস্ট পড়তে আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন। আপনাদের মতামত কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ-

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url